রবিবার
১লা আগস্ট ২০২১
City News Banner

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের তিব্বত সফর

দুর্বল দেশগুলোকে আর্থিক সহায়তার আহ্বান পরিবেশমন্ত্রীর

ম্যাচ ও সিরিজ সেরা সৌম্য সরকার

City News Banner
সর্বশেষ

Loading...

এবার জিম্বাবুয়ের টি-টোয়েন্টি পরীক্ষা নেবে টাইগাররা

এবার জিম্বাবুয়ের টি-টোয়েন্টি পরীক্ষা নেমে টাইগাররা-
জিম্বাবুয়ে সফরে দারুণ সময় কাটছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের। যদিও করোনার কারণে জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকতে হচ্ছে তাদের। তবে একমাত্র টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজে স্বাগতিকদের হোয়াইটওয়াশ করে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে লাল-সবুজ দলের ক্রিকেটাররা। এবার ব্রেন্ডন টেইলর-সিকান্দার রাজাদের টি-টোয়েন্টি পরীক্ষা নেবে টাইগাররা।

বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৪টায় শুরু হবে খেলাটি। টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজের মতো ২০ ওভারের ম্যাচেও জয়ের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে চাইবে টাইগাররা। এই সিরিজ দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতি শুরু করবে বাংলাদেশ। 

তবে দলের দুই অভিজ্ঞ ও নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যানকে পাচ্ছে না সফারকারীরা। পারিবারিক কারণে আগেই দেশে ফিরেছেন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। চোটের কারণে এই সিরিজে খেলা হচ্ছে না অভিজ্ঞ ওপেনার তামিম ইকবালের। ওয়ানডে সিরিজ খেলে এরই মধ্যে দেশে ফিরেছেন তামিম। তার জায়গায় লিটন দাসের সঙ্গে ইংনিস ওপেন করবেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ।

এদিকে বাবা-মা’য়ের করোনা আক্রান্তের খবরে টেস্ট খেলেই দেশে ফিরেছেন মুশফিকুর রহিম। তার অনুপস্থিতিতে মিডল অর্ডারের দায়িত্ব নিতে হবে সাকিব আল হাসান ও অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। আর শেষ ওয়ানডেতে দলে জায়গা পেয়ে ঝোড়ো ব্যাটিং করে দলকে ম্যাচ জেতানো নুরুল হাসান সোহানের একাদশে থাকা অনেকটাই নিশ্চিত। ৬ নম্বর পজিশনে ব্যাট করতে নামবেন তিনি। স্লগ ওভারে ঝড় তোলার দায়িত্বটা পড়বে সোহান আর আফিফের ওপর।

বোলিংয়ে ৪ পেসার নিয়ে নামতে পারে বাংলাদেশ। ২য় ওয়ানডেতে ৪ উইকেট নেয়া শরিফুল ইসলাম ফিরতে পারেন টি-টোয়েন্টিতে। মোস্তাফিজ, তাসকিন ও সাইফুদ্দিন থাকছেন যথারীতি।

অতীত পরিসংখ্যান ও বর্তমান ফর্ম বাংলাদেশকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলছে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১৩টি-টোয়েন্টির ৯টিই জিতেছে তারা। শেষ ৪ ম্যাচে নেই কোনো হার।

জিম্বাবুয়ের কাছে সবশেষ টি-টোয়েন্টি বাংলাদেশ হেরেছিল ২০১৬ সালে খুলনায়। এরপর তাদেরকে দেশের মাটিতে প্রত্যেকটি ম্যাচেই অনায়াসে হারিয়েছে। দ্বিপাক্ষিক সিরিজে অবশ্য ড্র হয়েছে ৩টি। দুই দল দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেছে ৫টি। বাংলাদেশ জিতেছে ২টি। জিম্বাবুয়ে সিরিজ জিততে না পারলেও ড্র করেছে।

দুই দলের মুখোমুখিতে বাংলাদেশ একবারই ২০০ রান করেছে, ২০২০ সালে ঢাকায়। জিম্বাবুয়ের সর্বোচ্চ রান ১৮৭, ২০১৬ সালে খুলনায়।

ব্যাট-বলে প্রাধান্য বিস্তার করে জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দেয়ার রেকর্ডও আছে বাংলাদেশের। যেবার ২০০ রান পুঁজি করেছিল বাংলাদেশ, ওইবার জয় পায় ৪৮ রানে। এ ছাড়া উইকেট বিবেচনায় ৯ উইকেটের জয়ও আছে।

দুই দলের লড়াইয়ে ৩৭৭ রান করে শীর্ষ ব্যাটসম্যান অবসরে যাওয়া হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। বল হাতে মোস্তাফিজের শিকার সর্বোচ্চ ১৫টি উইকেট। অতীত পরিসংখ্যান বাংলাদেশের যেমন আশা বাড়াচ্ছে, ঠিক তেমনই রঙিন পোশাকে ২৩ ম্যাচে অপরাজিত থাকার রেকর্ড আত্মবিশ্বাসী করে তুলছে। হারারেতে আসন্ন টি-টোয়েন্টিতেও বাংলাদেশের পতাকা উড়বে আশা করা যায়।

অন্যদিকে, টেস্ট ও ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়ে ব্যাকফুটে আছে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। তবে দলটির ব্যাটসম্যানেরা ভালো ফর্মে আছে। ওয়ানডে সিরিজে ২টি ফিফটি তুলে নিয়েছেন রেজিস চাকাভা। ওয়েসলি মাধভেরে আর ব্রেন্ডন টেইলরও আছেন ফর্মে। শেষ ম্যাচে মিডল অর্ডারে রায়ান বার্ল আর সিকান্দার রাজার ফিফটি দলটিকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলছে। তবে বোলাররা একেবারেই ভূমিকা রাখতে পারছেন না। যে কারণে ম্যাচ হারছে দলটি। ব্লেসিং মুজারাবানি ছাড়া আর কোনো পেসারই সঠিক জায়গায় বল ফেলতে পারছেন না।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ : মোহাম্মদ নাঈম শেখ, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান সোহান, শেখ মেহেদি হাসান, সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান

জিম্বাবুয়ের সম্ভাব্য একাদশ : রেজিস চাকাভা, মারুমানি, ওয়েসলি মাধভেরে, ব্রেন্ডন টেইলর, মেয়ার্স, সিকান্দার রাজা, রায়ান বার্ল, ডোনাল্ড টিরিপানো, লুক জংউই, ব্লেসিং মুজারাবানি, রিচার্ড এনগারাভা।

জেডআই/এএমকে