রবিবার
১লা আগস্ট ২০২১
City News Banner

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের তিব্বত সফর

দুর্বল দেশগুলোকে আর্থিক সহায়তার আহ্বান পরিবেশমন্ত্রীর

ম্যাচ ও সিরিজ সেরা সৌম্য সরকার

City News Banner
সর্বশেষ

Loading...

সুস্থভাবে ঈদ উদযাপন করতে যেমন খাবার খাবেন

সুস্থভাবে ঈদ উদযাপন করতে যেমন খাবার খাবেন
ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানেই খুশি। আর এক দিন পরেই ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ। ফলে প্রত্যেক মুসলিম উম্মাহের ঘরে শুরু হয়ে গেছে প্রস্তুতি। এই দিনটি ঘিরে নতুন জামা-জুতার পাশাপাশি থাকে নানা রকম খাবারের আয়োজন। মাংসের নানা পদ—সেমাই,পায়েশ, বিরিয়ানি, কাবাব, জর্দা প্রভৃতি খাবারের আয়োজনে ঈদ আনন্দ আরও বহুগুণ বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে, ঈদের দিন বেড়ে যায় কাজের চাপও। ফলে ব্যস্ততায় ঠিকভাবে সারাদিন খাওয়া হয় না।

এই কারণে ঈদের দিন অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েন। আর তাই সুস্থ থাকতে ঈদের দিন সকাল, দুপুর ও রাতে কী খাবেন বা কি করবেন সে বিষয়ে কিছু পরামর্শ দেয়া হলো। যা অনুসরণ করলে সবাই সুস্থভাবে ঈদ উদযাপন করতে পারবেন।

১. অনেকক্ষণ না খেয়ে থাকবেন না : ঈদে যতই ব্যস্ত থাকুন না কেন; সকালের খাবার বিকেলে খাওয়া মোটেও ঠিক হবে না। সময় মতো খেয়ে তবেই ঈদের আনন্দ উপভোগ করুন।

২. সকালের নাশতা ঠিকভাবে করুন : অ্যানার্জি পেতে ঈদের দিন সকালে একবাটি চিকেন ভেজিটেবল স্যুপ, সঙ্গে একটি রুটি অথবা এক প্লেট পাতলা খিচুড়ি খেতে পারেন। যেহেতু প্রচণ্ড গরম তাই সকালে ভারী খাবার এড়িয়ে চলুন।

৩. মিষ্টি জাতীয় কিছু খাবেন : ঈদের নামাজ পড়তে যাওয়ার আগে সেমাই, পায়েস, এগুলোর সঙ্গে কিশমিশ, বাদাম, ফলের জুস, যেমন-পেঁপে, আম ইত্যাদি খেতে পারেন। খাবার আধা ঘণ্টা পর দেড় থেকে দুই গ্লাস পানি খেয়ে ঈদের নামাজ পড়তে যাবেন।

৪. খালি পেটে দুধের তৈরি কোনো খাবার খাবেন না : ঈদের দিন সকালে কোনো ধরনের পেটের সমস্যাতে ভুগতে না চাইলে, খালি পেটে দুধের তৈরি খাবার না খাওয়াই ভালো। তবে নাশতা করার পর দুধের তৈরি মিষ্টি জাতীয় খাবার খেতে পারেন।

৫. কাজের ফাঁকে অল্প অল্প খাবার খেতে পারেন : কোরবানির ঈদ থাকায় অনেক ব্যস্ত থাকতে হয়। তাই কাজের ফাঁকে অল্প অল্প করে খাবার খেতে থাকবেন। তাহলে কাজের চাপে দুর্বল হয়ে পড়বেন না।

৬.পানি পান করুন : গৃহকর্ত্রীরা ঈদের দিন রান্না বা কাজের আয়োজনে যাবার পূর্বেই ভরপেট খেয়ে নিন। এ ছাড়া ডিহাইড্রেশন এবং মাথা ব্যথা এড়াতে চাইলে সারাদিনে পরিমাণ মতো পানি এবং শরবত খেতে ভুলবেন না। তবে একেবারে অনেক পানি না খেয়ে অল্প অল্প করে পানি পান করুন।

৭. ঈদের দিন দুপুরের যা খাবেন : এদিন দুপুরে সাধারণত সবাই ভারী খাবার গ্রহণ করে। পোলাও বা খিচুড়ির সঙ্গে চাইনিজ স্টাইলে সবজি রান্না করে খেতে পারেন। প্রোটিন হিসেবে মাংস, কাবাব, ফ্রাই, ভুনা-এর মধ্যে গ্রিল বা শিক কাবাব করে খাওয়াই বেটার। এতে তেল কম খাওয়া হয়। খাবারের মেন্যুতে গ্রিন সালাদ, দই দিয়ে সালাদ ও টমেটো চাটনি রাখতে পারেন। এতে ভিটামিনস ও মিনারেলস-এর চাহিদা পূরণ করবে। 

৮. ঈদের দিন রাতে যা খাবেন : রাতের খাবার যত হালকা করা যায় ততই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কারণ সারাদিন নিজের বাসায় এবং আত্মীয়-স্বজন, বন্ধুবান্ধব সবার বাসায় বেড়াতে গেলে ভারী তৈলাক্ত ও মশলাদার মুখরোচক খাবার খাওয়া হয়। আর তাই রাতে বাসায় ফিরে সবজি, চিকেন দিয়ে স্যুপ খাওয়া যেতে পারে। আবার পাতলা সাদা রুটি সবজি দিয়ে খেতে পারেন। 

টিআর/এএমকে