প্রথমবারের মতো ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজিত হতে যাচ্ছে কাতারে। বিশ্বকাপের সময়টায় বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন সংস্কৃতির মানুষের মিলনমেলা বসবে মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে। বিশ্বকাপ দেখতে আসা এসব দর্শকেরা চাইলে যা খুশি তাই করতে পারবেন না। দর্শকদের জন্য আছে বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা। বিশ্বকাপে আসা দর্শকদের জন্য কাতারে এক রাতের যৌনমিলন অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। ধরা পড়লে হতে পারে ৭ বছরের জেল।

শুধু তাই নয় বিশ্বকাপের সময় কাতারে রাতভর পার্টি করাও নিষিদ্ধ। সমর্থকদের আগে থেকে সাবধান করা হয়েছে, এই ধরনের কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে তারা যেন বিশ্বকাপ দেখতে না আসে। কাতার পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘‘স্বামী-স্ত্রী না হলে বিশ্বকাপ দেখতে এসে যৌনমিলন করা যাবে না। অর্থাৎ টুর্নামেন্টজুড়ে ‘এক রাতের যৌনমিলন’ নিষিদ্ধ। কোনো পার্টিও করা যাবে না। এটা না মানলে জেল হতে পারে। বিশ্বকাপে প্রথমবার নিয়ম করে ‘এক রাতের যৌনমিলন’ নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। সমর্থকদের তাই সতর্ক থাকতে হবে।”

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক ছাড়া যৌনমিলন এবং সমকামী সম্পর্ক নিষিদ্ধ। এই ধরনের অভিযোগ প্রমাণিত হলে সাত বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। ফিফা যদিও জানিয়েছে, বিশ্বকাপে সবাইকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। কিন্তু অভিযোগ আছে কিছু নির্দিষ্ট পদবির মানুষকে কাতার যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। 

কাতার বিশ্বকাপে ফিফার মুখ্য নির্বাহী নাসের আল খাতের বলেন, “প্রত্যেক সমর্থকের নিরাপত্তা আমাদের কাছে খুব গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু উন্মুক্তভাবে ভালোবাসা দেখানো আমাদের দেশের সংস্কৃতি নয়। সেটা সকলের জন্যই প্রযোজ্য।’ কাতার সুপ্রিম কমিটির পক্ষ থেকেও সকলকে সতর্ক করা হয়েছে। কাতার ফুটবল সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘কাতার খুব রক্ষণশীল দেশ। এখানে অনেক কিছুই সম্ভব নয়। সমকামিতা শুধু সেই দেশেই সম্ভব যেখানে এটা মানা হয়।’

আরআই