পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে অস্ত্রবিরতি চুক্তিতে এসেছে তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান (টিটিপি)। আগামী ৩০ মে পর্যন্ত এই চুক্তি কার্যকর থাকবে বলে বুধবার (১৮ মে) ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এতে দুপক্ষের মধ্যস্থতা করেছে আফগানিস্তানের তালেবান সরকার।-খবর আরবনিউজের

আফগান তালেবান থেকে বিচ্ছিন্ন একটি গোষ্ঠী হিসেবে পাকিস্তানে সক্রিয় টিটিপি। ইসলামাবাদ সরকারের পতনের দাবিতে তারা দীর্ঘদিন ধরে লড়াই চালিয়ে আসছে। তারা নিজস্ব ধরনের ইসলামি আইন দিয়ে দেশ শাসন করতে চায়।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তান সরকারের সঙ্গে সই হওয়া মাসব্যাপী অস্ত্রবিরতি চুক্তির ইতি ঘোষণা করে তেহরিক-ই-তালেবান পাকিস্তান। তাদের অভিযোগ ছিল, বন্দিদের মুক্তি দিতে চুক্তির লঙ্ঘন করেছে সরকার। এছাড়া আলোচনা চালিয়ে যেতে একটি কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও তা করা হয়নি।



চুক্তি ভেঙে যাওয়ার পর চলতি বছরের শুরুতে টিটিপির বিরুদ্ধে আভিযান পরিচালনা করে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী। এরপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে ৩০ মার্চ থেকে আল-বদর অভিযান পরিচালনার ঘোষণা দেয় নিষিদ্ধ সংগঠনটি।

দেশটির উপজাতীয় জেলাগুলো ও দক্ষিণাঞ্চলীয় খাইবার পাখতুনখাওয়া প্রদেশে তালেবান বিদ্রোহীরা অনেক বেশি সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এসব অঞ্চলের সঙ্গে আফগানিস্তানের সীমান্ত রয়েছে।

বুধবার আফগান তালেবানের মুখপাত্র জবিহুল্লাহ মুজাহিদ বলেন, পাকিস্তান সরকার ও দেশটির তালেবান আন্দোলনের মধ্যে কাবুলে আলোচনা হয়েছে। এতে মধ্যস্থতা করেছে ইসলামিক আমিরাত আফগানিস্তান। এ সময়ে দুপক্ষ অস্থায়ী অস্ত্রবিরতি চুক্তিতে সম্মত হয়েছে।


সাজেদ/