বাংলাদেশ সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞায় সাতক্ষীরার ভোমরা বন্দরসহ দেশের অন্যান্য বন্দর দিয়ে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। আমদানি বন্ধ থাকায় ভোমরা বন্দরে প্রতি কেজি পেঁয়াজে ১০-১২ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে।

গত মার্চ মাসে এক বিজ্ঞপ্তিতে দেশীয় কৃষকের স্বার্থ বিবেচনায় মে থেকে ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয়। সে নির্দেশনা মোতাবেক পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হয়ে যায়। এরই মধ্যে গত এক সপ্তাহে পেঁয়াজের কেজিতে ১২ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে।

ভোমরা বাজারের পাকারি পেঁয়াজ ব্যাবসায়ী শাহাজান গাজী পালাশ হেসেন বলেন, ঈদের আগে প্রতি কেজি ভারতীয় পেঁয়াজ ২০ থেকে ২২ টাকা দরে বিক্রি করেছি। কিন্তু ঈদের দুই দিন পর থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হয়েছে। পেঁয়াজ না আসায় বর্তমানে ৩০ থেকে ৪০ টাকায় পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।

পেঁয়াজ কিনতে আসা ক্রেতারা বলছে, দেশে এবার পর্যাপ্ত পেঁয়াজ উৎপাদন হয়েছে। ভারতীয় পেঁয়াজেরও মজুত রয়েছে। কিন্তু অতিরিক্ত মুনাফা করতে অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে দাম বাড়াচ্ছেন।

ভোমরা সিএন্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনেরসহ সভাপতি এজাজ আহমেদ স্বপন বলেন, গত ২৯ মার্চ পেঁয়াজ আমদানির অনুমোদনের মেয়াদ শেষ হয়। সে সময় রমজানে দেশে পেঁয়াজের সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে আমদানির সময় বাড়িয়ে মে পর্যন্ত নির্ধারণ করেছিল কর্তৃপক্ষ। নতুন করে আর অনুমোদন না মেলায় আমদানি বন্ধ রয়েছে। কবে নাগাদ আবার পেঁয়াজ আমদানি শুরু হবে তা জানাতে পারেননি ব্যবসায়ী নেতা।

ভোমরা বন্দরের সহকারী কমিশনার আমির মামুন জানান, ভোমরা বন্দর দিয়ে প্রতিদিন ৬০-৬৫ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হয়ে থাকে। সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকায় গত মে থেকে আমদানি বন্ধ রয়েছে।

 

এএমকে