রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালানোর জেরে মস্কোর ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণে পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার চেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দ্য মস্কো টাইমস ও পার্স টুডে এ খবর জানিয়েছে।

পুতিন বৃহস্পতিবার (১২ মে) উচ্চ পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক বৈঠকে দাবি করেন, বহিরাগত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে তার দেশ স্থিতিশীল রয়েছে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা চালালে পশ্চিমা দেশগুলো মস্কোর ওপর নজিরবিহীন নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

পুতিন এ দিন আরও বলেন, ‘পশ্চিমা সরকারগুলো অদূরদর্শী, স্থূল রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা ও রাশিয়ান-আতঙ্কে আক্রান্ত হয়ে তাদের নিজস্ব জাতীয় স্বার্থ, অর্থনীতি ও নাগরিকদের মঙ্গলের ক্ষেত্রে কঠিন আঘাতের মুখোমুখি হয়েছে।’

পুতিন আরও বলেন, ‘আমরা ইউরোপে তীব্র মুদ্রাস্ফীতি দেখতে পাচ্ছি। কিছু দেশে মুদ্রাস্ফীতি ২০ শতাংশের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। এটা স্পষ্ট যে, নিষেধাজ্ঞার ধারাবাহিকতা অনিবার্যভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং এর নাগরিকদের জন্য সবচেয়ে কঠিন পরিণতির দিকে নিয়ে যাবে। রাশিয়া আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বাহ্যিক চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করছে।’

গত মার্চ মাসে রাশিয়ার ১৬ দশমিক ৭ শতাংশ মুদ্রাস্ফীতি ধীরে ধীরে কমিয়ে মুদ্রা হিসেবে রুবলকে শক্তিশালী করে তোলার বিষয়টির প্রশংসা করেন পুতিন। তিনি দাবি করেন, ইউক্রেন সংকট শুরুর পর থেকে রুশ মুদ্রা রুবল এখন সবচেয়ে শক্তিশালী; বরং যুদ্ধ শুরুর আগের চেয়েও এখন রুবল শক্তিশালী হয়ে উঠেছে।

পুতিন বলেন, কঠোর পুঁজি নিয়ন্ত্রণ ও জ্বালানি রফতানির কারণে রুবল এখন দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তিনি বলেন, ‘রুবল সম্ভবত সমস্ত আন্তর্জাতিক মুদ্রার মধ্যে সেরা গতিশীলতা দেখাচ্ছে।’


এইচএ /এএল