করাচির সাদ্দার এলাকায় বৃহস্পতিবার (১২ মে) রাতে বিকট এক বিস্ফোরণে কমপক্ষে একজন নিহত হয়েছেন। তার নাম উমর সিদ্দিকী। তিনি জিন্নাহ হাসপাতালের একজন কর্মী ছিলেন। 

আহত হয়েছেন ১৩ জন। ডিআইজি দক্ষিণ সারজিল খারাল বলেছেন, এতে বেশ কয়েকটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আশপাশের অনেক ভবনের জানালার কাচ ভেঙে গেছে। আহতদের ভর্তি করা হয়েছে জিন্নাহ হাসপাতালে। তাদেরকে দেখতে সেখানে সফর করেছেন করাচির প্রশাসক মুরতজা ওয়াহাব। তিনি হাসপাতাল প্রশাসনকে সর্বোত্তম সেবা দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন জিও নিউজ।

করাচির সব সরকারি হাসপাতালে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। হাসপাতালগুলোর সূত্র বলেছেন, যাদেরকে সেখানে নেয়া হয়েছে তাদের গায়ে বল-বিয়ারিং বিদ্ধ হয়েছে। তবে তারা আশঙ্কামুক্ত। ডাক্তার রসুল নিশ্চিত করেছেন যে, একটি মৃতদেহ নেয়া হয়েছে হাসপাতালে। তবে আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সিন্ধুর মুখ্যমন্ত্রী মুরাদ আলি শাহ’র কাছে ডিআইজি দক্ষিণ যে রিপোর্ট জমা দিয়েছেন তাতে বলা হয়েছে, একটি বাইসাইকেলে বাঁধা ছিল বিস্ফোরক (আইইডি)। তা ইউনাইটেড বেকারির কাছে বিস্ফোরিত হয়েছে।  সূত্র বলেছেন, বিস্ফোরণস্থলের কাছেই পার্ক করা ছিল কোস্ট গার্ডের একটি গাড়ি। সেটাকেই টার্গেট করা হয়েছিল। তবে এই গাড়ির ভিতরের সবাই নিরাপদ আছেন।

বোমা নিষ্ক্রিয়করণ বিভাগের মতে এই বোমাটি স্থানীয়ভাবে তৈরি। এতে দুই থেকে আড়াই কিলোগ্রামের বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছিল। ওদিকে সিন্ধুর তথ্যমন্ত্রী সারজিল মেমন বলেছেন, হামলাকারী কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না। তিনি বলেন, এর আগে ইউনিভার্সিটি অব করাচিতে আত্মঘাতী হামলা চালানো হয়েছিল। তার সঙ্গে এই হামলার কোনো যোগসূত্র আছে কিনা তা এখনই বলা যাচ্ছে  না।

এইচএ /এএল