ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়ায় এক দোকানির বিরুদ্ধে পল্লী বিদ্যুতের বিল পরিশোধের নামে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতরণার অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (১০ মে) বিকালে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-, আছিম সাব জোনাল অফিসের এজিএমসহ বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজন উপজেলার এনায়েতপুর ইউনিয়নের কাহালগাঁও গ্রামে যান। সেখানে তারা গ্রাহকদের বকেয়া বিল পরিশোধের তাগিদ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গিয়ে প্রতারণার বিষয়ে খোঁজ পান।

কাহালগাঁও বাজারে মুন্নি কসমেটিক্স এন্ড টেলিকমের মালিক মো. আলমগীর। তিনি গ্রাহকদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ বিলের টাকা জমা নেন। তিনি আছিম সাব জোনাল অফিসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. আব্দুল মতিনের স্বাক্ষর জাল করেন। এরপর অফিসের সিল দিয়ে গ্রাহকদের বিলের কপি দেন প্রতারক আলমগীর। সিলে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি--এর স্থলে লেখা রয়েছেআছিম শাখা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-

ওই দিন বিকালে কাহালগাঁও গ্রামের সুজন মিয়া, কবির হোসেন, জহিরুল ইসলাম, মুঞ্জুরুল ইসলামসহ পাঁচজনের বাড়ি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে বিদ্যুৎ বিভাগ। এ সময় তারা বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনদের বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের কপি দেখালে প্রতারণার বিষয়টি ধরা পরে। পাঁচজন গ্রাহকের বিদ্যুৎ বিল বাবদ প্রায় ৩২ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে ওই প্রতারক। বিষয়টি জানাজানি হলে আলমগীর পালিয়ে যায়।

বিদ্যুৎ গ্রাহক মুঞ্জুরুল হক বলেন, ‘পাঁচজন গ্রাহকের ৩২ হাজার টাকা নিয়ে ২৯ এপ্রিলনগদ গ্রহণকর্মকর্তার স্বাক্ষর সিল দিয়ে বিলের কপি দিয়েছে আলমগীর। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পর জানতে পারি বিলের কাগজ স্বাক্ষর জাল করে প্রতারণা করা হয়েছে।’

আছিম সাব জোনাল অফিসের এজিএম মশিউর রহমান জানান, বিল পরিশোধের তাগিদ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গিয়ে আলমগীর নামের এক ব্যক্তি অফিসের সিল স্বাক্ষর জাল করে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করার বিষয়টি ধরা পরে। ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এএমকে