দেশবরেণ্য পরমাণু বিজ্ঞানী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ১৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। তিনি ২০০৯ সালের ৯ মে পরলোক গমন করেন।

যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন উপলক্ষ্যে তার জন্মস্থান পীরগঞ্জ উপজেলার লালদিঘী ফতেহপুর গ্রামে এবং রংপুর মহানগরীতে পীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, ড. ওয়াজেদ মিয়ার পরিবার, উপজেলা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠন, ড. ওয়াজেদ স্মৃতি সংসদ, ড. ওয়াজেদ ফাউন্ডেশন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, তার স্মৃতিচারণ, কবর জিয়ারত, মিলাদ মাহফিল ও গরিবদের মাঝে খাবার বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জামাতা ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান ছিলেন। ১৯৪২ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি লালদিঘীর ফতেহপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া। 

দিনটি উপলক্ষে সোমবার পীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামী লীগ, ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া ফাউন্ডেশন এবং আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলো শ্রদ্ধা নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও কবর জিয়ারত, স্মৃতিচারণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলসহ বিভিন্ন কর্মসূচি নিয়েছে।

এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ভাতিজা এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পীরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র তাজিমুল ইসলাম শামীম গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সোমবার সকালে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনসমূহ, বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠন এবং সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে লালদীঘির ফতেহপুরে জয়সদনে এম এ ওয়াজেদ মিয়ার কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন। জয়সদন প্রাঙ্গণে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল শেষে দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হবে।

পীরগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিরোদা রানী রায় জানান, ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সোমবার সকালে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন, দুপুরে উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে স্মৃতিচারণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

বরেণ্য এ পরমাণু বিজ্ঞানীর কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণে এ আলোচনা সভায় তার নিকটাত্মীয়রা উপস্থিত থাকবেন। জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী জুম কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

এইচএ /এএল