উৎসবমুখর পরিবেশে ছাত্রলীগের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭টি হলের সম্মিলিত সম্মেলন-২০২২ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১৪ মার্চ) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের 'সাবাস বাংলাদেশ' মাঠে আয়োজিত সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। 

সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘ছাত্রলীগকে হতে হবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের আপনজন। হলে সিট না থাকলে সিটের ব্যবস্থা করবে, খাবার না থাকলে খাবার ব্যবস্থা করবে, বই না থাকলে বইয়ের ব্যবস্থা করবে, সবসময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশে থাকবে ছাত্রলীগ-এটিই আমরা প্রত্যাশা করি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা খালেদা জিয়ার মতো ভিত্তিপ্রস্তরের রাজনীতি করি না। আমরা ভিস্তিপ্রস্তর স্থাপন করি, আবার সেই কাজ বাস্তবায়ন করেও দেখাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগকে আগামীতেও ক্ষমতায় থাকতে হবে। আওয়ামী লীগ আগামী আরও কয়েক বছর ক্ষমতায় থাকলে বাংলাদেশকে আর কখনও পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না। আমরা ধনী রাষ্ট্রে পরিণত হবে।’

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল সরকার, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারা, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়, সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য, আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা। 

সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ছাত্রলীগের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি গোলাম কিবরিয়া। রাবির শাহ্ মখদুম হল ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফ বিন জহিরে সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু।  

এর আগে জাতীয় ও ছাত্রলীগের দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সম্মেলনের শুরু হয়। সম্মেলনের শুরুতে প্রধান অতিথিসহ সকল অতিথিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। সম্মেলনে শোকপ্রস্তাব পাঠ শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদ এবং ছাত্রলীগের শহীদ ও প্রয়াত নেতাকর্মীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।


এফআইজে/ডা