শনিবার   ০১:১২ পূর্বাহ্ন
৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১  |  ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮  |  ২৯শে রবিউস-সানি, ১৪৪৩ পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
লগইন
সর্বশেষ

Loading...

নটর ডেম শিক্ষার্থীদের ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

নটরডেম শিক্ষার্থীদের ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম

নটরডেম শিক্ষার্থীদের ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম

সহপাঠী নাঈম হাসানের মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত বিচার দাবিতে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে সড়ক ছেড়েছেন নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থীরা। এই সময়ের মধ্যে দাবি না মানলে রোববার (২৮ নভেম্বর) থেকে আবারও রাজপথে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তারা।


বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) নটর ডেম কলেজের সামনে থেকে মিছিল নিয়ে মতিঝিল শাপলা চত্বর হয়ে গুলিস্তানের জিরো পয়েন্ট মোড়ে অবস্থান নিয়ে এ আল্টিমেটাম দেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও মতিঝিল সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে।

এ সময় শিক্ষার্থীদের হাতে কত লিটার রক্ত লাগবে সড়ক আইন লিখতে?’, ‘বুঝাবুঝি চলবে না’, ‘দেশ কেন ডুবে বিষে? দেশের মেধা, এদেশ রাস্তায় পিশে’, গাড়ির চাকা ঘুরবে না’, ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’ লেখা সম্বলিত পোস্টার ও প্ল্যাকার্ড দেখা গেছে।


এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শিক্ষার্থীরা নটর ডেম কলেজের সামনে থেকে মিছিল নিয়ে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে অবস্থান নেয়। সেখানে তারা দ্বিতীয় দিনের মতো কয়েকশ’ শিক্ষার্থী বিক্ষোভ শুরু করেন। সেখানে বেলা দেড়টা পর্যন্ত ছিলেন তারা। এরপর শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরনের প্ল্যাকার্ড নিয়ে রাজউক ভবনের দিকে অগ্রসর হন।

পরে মিছিল নিয়ে ছাত্ররা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) কার্যালয়ের (নগর ভবন) সামনে অবস্থান নেয় তারা। নগর ভবনের প্রধান ফটক বন্ধ থাকায় সেখানে অবস্থান করছেন নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থীরা।  তারা সেখানে সহপাঠী নাঈমের মৃত্যুর প্রতিবাদে বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন। আমার ভাই মরলো কেন, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘আমরা বিচার চাই’, ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-সহ নানা ধরনের স্লোগান দিতে থাকেন।

এদিকে নটর ডেম কলেজের ছাত্র নাঈম হাসানের অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘কোনো অন্যায় বরদাশত করা হবে না। আমরা এরই মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন থেকে ব্যবস্থা নেয়া আরম্ভ করেছি। আমরা তদন্ত কমিটি করেছি এবং আমরা এরই মাঝে তাদেরকে চিহ্নিত করেছি। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা এবং প্রাতিষ্ঠানিক যে কার্যক্রম আছে সেগুলোও আমরা নেব। যাতে করে সুষ্ঠুভাবে বিচার সম্পন্ন হয় এবং সর্বোচ্চ শাস্তি যেন হয়, সেটাই আমরা কামনা করি।’

উল্লেখ্য, বুধবার দুপুরে গুলিস্তান হল মার্কেটের সামনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লার ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ যায় ১৭ বছরের তরুণ নাঈমের। নটর ডেম কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন তিনি। কামরাঙ্গীরচরের বাসিন্দা শাহ আলমের ছেলে নাঈম দুই ভাইয়ের মধ্যে ছোট। তার বাবা নীলক্ষেতের একটি বইয়ের দোকানের মালিক। নাঈমের মৃত্যুর পর তার সহপাঠীরা দুপুর থেকে বিকেল অবধি গুলিস্তানে সড়ক আটকে বিক্ষোভ দেখায়। পরে শিক্ষকেরা বুঝিয়ে তাদের সরিয়ে নেন।

ঘটনার পরপরই সিটি করপোরেশনের ওই গাড়িচালক রাসেল খানকে আটক করা হয়। তবে তিনি সিটি করপোরেশনের নিয়োগপ্রাপ্ত গাড়িচালক নন বলে পল্টন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাউদ্দিন জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সড়ক পরিবহন আইনে করা মামলায় রাসেলকে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হবে।

জেডআই/এম. জামান